আশুলিয়ায় অনুপ্রবেশ বিএনপি কোণঠাসা আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাগণ

সাঈম সরকারঃ ঢাকা জেলার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এলাকা আশুলিয়ায় বিভিন্ন ওয়ার্ড, ইউনিয়ন ও থানা সহ সকল এলাকায় আওয়ামী যুবলীগ স্বেচ্ছাসেবক লীগ ছাত্রলীগসহ সকল অঙ্গসংগঠনে বিএনপি নেতাদের অনুপ্রবেশ আওয়ামী লীগ নেতাগণ রয়েছে কণঠাসায় ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলার মানুষকে একটি সোনার বাংলা উপহার দেওয়ার অনুপ্রেরণায় যখন নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছিলেন। তখনি স্বাধীনতা বিরোধী নেতৃত্বাধীন নেতারা বঙ্গবন্ধুর স-পরিবারকে নির্মমভাবে হত্যা করে ক্ষমতায় আসে । ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য তৎকালীন স্বাধীনতা বিরোধীপন্থী আওয়ামী লীগের নেতাদের উপর চালিয়েছেন বর্বর অত্যাচার ।

হত্যা করা হয়েছে স্বাধীনতাকামী ত্যাগী নেতাদেরকে । পরবর্তিতে এসে তাদের বংশধরদের দারা নির্যাতিত হয়েছে বর্তমান আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা সহ বিভিন্ন নেতাকর্মীগণ। বিভিন্ন ত্যাগ ও নির্যাতনের বিনিময়ে আজ বাংলার মানুষ জনেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি মডেল রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে পরিচিতি লাভ করেছে। দেশ এখন উন্নয়নের দিকে এগিয়ে চলছে । জনগণ যখন বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না । বাংলার মানুষ আর এই ধরনের রাজাকারদের বাংলাদেশে ঠাঁই দিচ্ছে না ।

তখন এরা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে আওয়ামী লীগসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে সক্ষতা গড়ে তুলে আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করে লুটেপুটে খাচ্ছে বাংলার মানুষের সম্পদ। এদের কারণে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতারা আজ কোণঠাসা।

এরা আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করে করছেন চাঁদাবাজি দখলবাজি সহ নানা অপকর্ম । দোষ হচ্ছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের। বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে আশুলিয়ার শিমুলিয়া ইউনিয়ন সহ পাঁচটি ইউনিয়ন ও থানা পর্যায়ে আওয়ামী যুবলীগে অনুপ্রবেশ করেছেন বিএনপি নেতৃত্বাধীন ছাত্রদল ও যুবদলের অনেক নেতাকর্মীরা ।

কাউকে দেয়া হয়েছে পদ-পদবী, কেউবা রয়েছে ট্রায়ালে। তদবির করা হচ্ছে বড় বড় পদের জন্য।
যারা কিনা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে, তাদের নিয়েই করা হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুবার্ষিকী পালন ।

যারা একুশে আগস্ট, বর্তমান জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনায় গ্রেনেড হামলা চালিয়েছে তাদের কে নিয়ে পালন করা হচ্ছে একুশে আগস্ট ।
দুঃখজনক হলেও সত্য আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আজ সত্যিই কোণঠাসা।এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ও আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা কর্মী দু:খ প্রকাশ করেন ।

বর্তমান সরকার জননেত্রী শেখ হাসিনা একজন বিচক্ষণ ব্যক্তিত্ব ওসুসংগঠিত সুসময়ের প্রতীক । আপনার কাছে আমাদের একটাই চাওয়া, আমরা যারা ত্যাগী দুঃসময়ের আওয়ামী লীগের জন্য রাজপথে ছিলাম রক্ত দিয়েছি পিছু হাঁটিনি আওয়ামীলীগের কান্ডারী বঙ্গবন্ধুর আদর্শেকে বুকে ধারন করে আজ আমরা কোণঠাসা হয়ে পড়ে আছি। বর্তমানে আওয়ামী লীগে প্রবেশ করেছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ছাত্রদল-যুবদল সহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীগণ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের আকুল আবেদন এই যে, সামনে কাউন্সিল তাই আমরা চাচ্ছি অবশ্যই বিষয়টি বিশ্লেষণ করে আওয়ামী নেতা কর্মীদের সামনে আনতে অনুপ্রবেশকারী ভুঁইফোড় নেতা যেন আওয়ামী লীগে প্রবেশ করতে না পারে ও যারা বর্তমানে রয়েছে তারা থাকতে না পারে এই বিষয়গুলো খতিয়ে দেখে অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মী নির্বাচিত করা হোক। পর্ব ১ পরবর্তী সংখ্যা মুখোশ উন্মোচন

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category